Tips, tutorials, and techniques for the modern Freelancer.
#44
সহজে আয় বলতে এমন কাজ করা বুঝায় যার জন্য বিশেষ দক্ষতা প্রয়োজন হয় না। এজন্য পিটিসি বা ক্লিক করে আয় সবচেয়ে জনপ্রিয়। আলোচনাও শেখান থেকে শুরু করা যাক। জনপ্রিয় এবং প্রতিষ্ঠিত পিটিসি সাইট ক্লিক্সসেন্স বলে, আপনার পোষা বেড়ালকে যদি ক্লিক করতে শেখান এবং তাকে দিয়ে ক্লিক করান তাতেও তাদের আপত্তি নেই। আপনি টাকা পাবেন।

ক্লিক করার পাশাপাশি এই সাইটগুলি অন্যান্য কিছু কাজের সুযোগ দেয়। যেমন ইউটিউবে নির্দিষ্ট ভিডিও দেখা এবং ভোট দেয়া, টুইটারে নির্দিস্ট কাউকে ফলো করা, নির্দিষ্ট সফটঅয়্যার ডাউনলোড করে ইনষ্টল করা ইত্যাদি ছোট কিছু কাজ করে আয় করতে পারেন। এসব থেকে আয় ক্লিক করে আয়ের চেয়ে বেশি। লক্ষ করলে দেখবেন এদের প্রতিটিই ব্যবসায়িক প্রচারের জন্য। মুলত বিভিনড়বভাবে ব্যবসার পরিচিতি বাড়ানো বা বিজ্ঞাপন প্রচার করে ব্যবসা বাড়ানোর জন্য এসব করা হয়। এধরনের সাইট থেকে আয়ের একটি বড় উৎস তাদের লিংক প্রচার করা (এফিলিয়েশন)। সদস্য হলে আপনার জন্য একটি লিংককোড পাবেন। বøগ, ইমেইল, ফেসবুক ইত্যাদির মাধ্যমে সেই লিংক প্রচার করতে পারেন। যারা সেই লিংকে ক্লিক করে সদস্য হবেন তারা যে আয় করবেন তার অংশ আপনার নামে জমা হবে। বিশেষ করে যারা বøগ পরিচালনা করেন তাদের জন্য আয়ের বড় সুযোগ হতে পারে এই ব্যবস্থা। কয়েকশত কিংবা কয়েক হাজার সদস্য তৈরী করে দিলে নিজে কিছু না করেও ভাল আয় করা সম্ভব।

পিটিসি এবং অন্যান্য আয়ের ভাল দিক মন্দ দিক দুইই রয়েছে। এখানে বিষয়গুলি তুলে ধরা হচ্ছে।

সহজে আয়ের সাইটের ভাল দিক
  • সহজ আয়
    যেমন বলা হয় তেমনি আয় আসলেই সহজ। আপনার কোন দক্ষতা প্রয়োজন নেই। কম্পিউটার/মোবাইল ফোন এবং ইন্টারনেট ব্যবহারের সুযোগ থাকলে যে কেউ যে কোন সময় আয় করতে পারেন।
  • যে কোন সময় কাজ করা যায়
    আপনি কখন কাজ করবেন, কতক্ষন কাজ করবেন এধরনের কোন বাধ্যবাধকতা নেই। ইচ্ছে হল কাজ করলেন, ইচ্ছে হল করলেন না এই নিয়মে কাজ করতে পারেন। দিনের যে কোন সময় তাদের সাইটে গিয়ে কিছুক্ষন কাজ করতে পারেন।
  • সহজ সদস্য হওয়ার ব্যবস্থা
    এধরনের সাইটে সদস্য হওয়া খুবই সহজ। মুলত ই-মেইল এড্রেসটাই জরুরী। বাকি কোনকিছু নিয়ে তারা মাথা ঘামায় না। এমনকি নাম নিয়েও না। টাকা দেয়ার সময়ও সাধারনত প্রতিষ্ঠিত সাইটগুলি গড়িমসি করে না।
  • আলাদা খরচ নেই
    ইন্টারনেট ব্যবহার ছাড়া আলাদাভাবে কোন ফি দিতে হয় না। অবশ্য ফি দিয়ে সদস্য হলে আয় বাড়ানো যায়।
সহজে আয়ের সাইটের মন্দ দিক
  • আয় একেবারেই কম
    কেউ যদি বলে অমুক সাইট থেকে ক্লিক করে মাসে ২০০ ডলার আয় করা সম্ভব, জানবেন তিনি বাস্তবতা জানেন না অথবা কোন কারনে মিথ্যে বলছেন। পিটিসি মুলত বিজ্ঞাপন পরিবেশন করে। টাকার মুল উৎস বিজ্ঞাপনদাতা। তারা চুক্তি করেন হয়ত ১ হাজার ডলারে ১ লক্ষ ক্লিকের। এর অর্ধেক টাকাও যদি আপনাকে দেয়া হয় তাহলেও ১ হাজার ডলার আয়ের জন্য আপনাকে ২ লক্ষ ক্লিক করতে হয়। সেটা বাস্তবসম্মত না। আপনাকে সবগুলি ক্লিক করার সুযোগও দেয়া হবে না। আপনারআয় একেবারেই কম কেউ যদি বলে অমুক সাইট থেকে ক্লিক করে মাসে ২০০ ডলার আয় করা সম্ভব, জানবেন তিনি বাস্তবতা জানেন না অথবা কোন কারনে মিথ্যে বলছেন। পিটিসি মুলত বিজ্ঞাপন পরিবেশন করে। টাকার মুল উৎস বিজ্ঞাপনদাতা। তারা চুক্তি করেন হয়ত ১ হাজার ডলারে ১ লক্ষ ক্লিকের। এর অর্ধেক টাকাও যদি আপনাকে দেয়া হয় তাহলেও ১ হাজার ডলার আয়ের জন্য আপনাকে ২ লক্ষ ক্লিক করতে হয়। সেটা বাস্তবসম্মত না। আপনাকে সবগুলি ক্লিক করার সুযোগও দেয়া হবে না। আপনার মত অন্য যারা আছেন তাদের মধ্যে ভাগাভাগির কারনে আপনি অল্পসংখ্যক ক্লিক করার সুযোগ পাবেন।
  • ভুয়া সাইটের সংখ্যা খুব বেশি
    যারা ইন্টারনেটে আয় করতে চান তারা প্রথমেই আগ্রহ দেখান পিটিসি-র দিকে। তাদের অনভিজ্ঞতাকে পুজি করে সহজে ঠকানো যায়। অনেক সাইট একে পুজি করে ঠকবাজি ব্যবসা করে। বেশি টাকা দেয়ার কথা বলে কাজ করায়, টাকা দেয় না। কিছুদিন এভাবে টাকা আয় করার পর সাইটগুলি বন্ধ হয়ে যায়, নতুন নামে আরেকটি সাইট খুলে একই কাজ শুরু করে।
  • কাজের ইচ্ছে নষ্ট করে
    পিটিসি সাইট সম্পর্কে সবচেয়ে গুরুতর অভিযোগ এই সাইটগুলি মানুষকে কর্মবিমুখ করে। ব্যবহারকারীদের সবসময়ই বুঝানো হয় আরেকটু চেষ্টা করলে অনেক বেশি আয় করা যাবে। বাস্তবে সেটা হয় না। যারা আগেই এই বিষয়টি বোঝেন তারা পিটিসি বিষয়টি মাথা থেকে বিদায় করে সত্যিকারের কাজের দিকে দৃষ্টি দেন এবং কোন বিষয়ে দক্ষতা অর্জনের চেষ্টা করেন।

একটু সামান্য অভিজ্ঞতা আপনাকে শিখিয়ে দেবে যে ফ্রিল[…]

যাঁরা প্রচলিত অফিস বাদ দিয়ে ঘরে বসে ফ্রিল্যান্সিং[…]