Tips, tutorials, and techniques for the modern Freelancer.
#30
সাধারনভাবে সহজে আয়ের কথা বলে যে প্রতারনাগুলি করা হয় সেগুলি এমন;

প্রতারনা ১ : আগে টাকা নেয়া

এরই মধ্যে বাংলাদেশে এধরনের প্রতারনা ব্যবসা করা হয়েছে। সহজে বিপুল পরিমান লাভ দেয়া হবে বলে অগ্রিম টাকা নেয়া হয়েছে। আপনি ১০ হাজার টাকা জমা দেবেন, এরপর প্রতিমাসে ক্লিক করে ৩ হাজার টাকা করে পাবেন। আপনাকে বোঝানো হয়েছে আপনি এভাবে μমাগত টাকা পেতেই থাকবেন। মাসে ৩ হাজার হিসেবে বছরে ৩৬ হাজার। জমা টাকার পরিমান ৩০ কিংবা ৪০ হাজার হলে আয়ের পরিমানও বেশি।
আপনাকে হয়ত প্রথম মাসে টাকা দেয়াও হয়েছে। আপনাকে বলা হয়েছে অন্যদের সদস্য বানালে আয় আরো বেশি। আপনার আয় দেখে অন্যরাও টাকা দিয়েছে। ধরুন ১০ জনকে আপনি উতসাহিত করলেন। সেই ১০ জনের মাধ্যমে আরো ১০০ জন। তাদের মাধ্যমে হাজার হাজার।

এবার হিসেবটা দেখা যাক। ১০০ জনের কাছে ১০ হাজার করে টাকা নিলে তারা পাচ্ছে অন্তত ১০ লক্ষ। প্রথম মাসে ৩ হাজার করে ফেরত দিলে তাদের হাতে থাকে ৭ লক্ষ। এটাই তাদের লাভ। এরবেশি ব্যাখ্যা হয়ত প্রয়োজন নেই।

কিছুটা অপ্রাসংগিক মনে হলেও উল্লেখ করতে হচ্ছে, বাংলাদেশে বিপুল পরিমান মানুষের মধ্যে সহজে টাকা আয়ের প্রবনতা রয়েছে। যেকারনে বিভিনড়বভাবে লক্ষ লক্ষ মানুষ প্রতারনার শিকার হয়েছেন। হাজার টাকা জমা দিলে লক্ষ টাকা পাবেন এই কথা শুনে নিজের টাকা দিয়েছেন। ফ্রিল্যান্সার হতে হলে প্রথমেই এই মানষিকতা ত্যাগ করতে হবে। ফ্রিল্যান্সার টাকা নেবেন কাজের বিনিময়ে। যে পরিমান কাজ তারসাথে মানানসই টাকা। কাজ না করে টাকা নেয় একমাত্র ভিক্ষুক এবং একজন ভিক্ষুক চোরের থেকেও নি¤ড়ব পর্যায়ের। চোর অন্তত একটা কাজ দক্ষতার সাথে করে।

ইন্টারনেটে আয়ের জন্য প্রথম শিক্ষা, কাউকে অগ্রীম টাকা দেবেন না। কেউ টাকা চাইলে সেখান থেকে দুরে থাকুন।

বিষয়টি স্পষ্ট করা যাক। পিটিসি নামের যে সাইটগুলি রয়েছে সেগুলি ব্যবহারের জন্য ফরম পুরন করে সদস্য হতে হয়। এরপর তাদের সাইটে গিয়ে নির্দিষ্ট লিংকে ক্লিক করলে আপনার নামে টাকা জমা হবে। পিটিসি সাইটের কাজ এখানে বিজ্ঞাপন প্রচারকের। একে সংবাদপত্রের বিজ্ঞাপন কিংবা টিভির বিজ্ঞাপনের সাথে তুলনা করতে পারেন। আপনি যেহেতু নিজের টাকা খরচ করে (ইন্টারনেট বিল), সময় নষ্ট করে বিজ্ঞাপন দেখবেন না সেকারনে বিজ্ঞাপন দেখার জন্য টাকা দেয়া হয়। মুলত টাকা পিটিসি সাইট দেয় না, দেন বিজ্ঞাপনদাতা। পিটিসি সাইট তাদের কাছে টাকা নিয়ে যিনি বিজ্ঞাপন দেখেন তাকে কিছুটা দেন, বাকিটা নিজেদের লাভের হিসেবে জমা করেন।

কাজেই আপনি যখন ক্লিক করে আয় করছেন তখন তাদেরও আয় হচ্ছে। এটাই তাদের ব্যবসা। কাজেই আপনি বিনা টাকায় সদস্য হয়ে টাকা আয় করবেন এটাই স্বাভাবিক।

টাকা দিয়ে সদস্য হওয়ার হিসেব কিছুটা অন্যরকম। পিটিসি বিশ্বব্যাপি অত্যন্ত জনপ্রিয়। যেকারনে অনেক সাইটে হাজার হাজার, কিংবা লক্ষ লক্ষ ব্যক্তি সদস্য হন। একে ব্যবসায়িক কাজে ব্যবহার করে তারা অতিরিক্ত কিছু আয় করে।

হিসেবটা হচ্ছে, আপনি যদি টাকা দিয়ে সদস্য হন (মাসে বা বছরে নির্দিষ্ট ফি দেন) তাহলে বেশি ক্লিক করার সুযোগ পাবেন। বিনা টাকার সদস্য হিসেবে সীমিত সংখক ক্লিক করার সুযোগ পাবেন। আপনার আয় যেহেতু ক্লিকের সংখ্যার ওপর নির্ভরশীল সেহেতু তাদের টাকা দিলে আয়ের সম্ভবনা বেশি।

সিদ্ধান্ত নিতে পারেন এভাবে, বিনা টাকার সদস্য হয়ে আয় শুরু করুন। যদি আয়কে সন্তোষজনক মনে হয়, সাইটকে নির্ভরযোগ্য মনে হয়, এভাবে আয় চালিয়ে যেতে চান তাহলে পরবর্তীতে টাকা দিয়ে বিশেষ সদস্য হতে পারেন।

ফ্রিল্যান্সিং জব সাইটের হিসেবও অনেকটা একই। আপনি কাজ করে আয় করবেন, সেই আয়ের কিছু তারা রেখে দেবে সার্ভিস চার্জ হিসেবে। সেখানেও কাজ পাওয়ার জন্য টাকা দেবার বিষয় নেই। তবে ফি দিলে অতিরিক্ত সুবিধের ব্যবস্থা আছে। যেমন সার্ভিস চার্জ কম রাখা, বেশি সংখক কাজের জন্য আবেদন করার সুযোগ কিংবা কাজ পাওয়ার ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার পাওয়া। এবিষয়ে বিস্তারিত তথ্য পাবেন ফ্রিল্যান্সিং অংশে।

একটু সামান্য অভিজ্ঞতা আপনাকে শিখিয়ে দেবে যে ফ্রিল[…]

যাঁরা প্রচলিত অফিস বাদ দিয়ে ঘরে বসে ফ্রিল্যান্সিং[…]